বরাদ্দ টাকায় কুলোচ্ছে না, সরব শিক্ষকেরা

  |   Bardhamannews

এক দিকে আনাজে আকাল, আর এক দিকে রান্নার গ্যাসের সিলিন্ডারের দাম- জোড়া ধাক্কায় মাথায় হাত প্রাথমিক স্কুলের শিক্ষক-শিক্ষিকাদের। তাঁদের দাবি, বেশি পড়ুয়ার স্কুলগুলিতে কোনও ভাবে মিড-ডে মিল চালানো গেলেও যেখানে পড়ুয়া কম, সেখানে নাকানিচোবানি অবস্থা। এ অবস্থায় মিড-ডে মিলের 'মেনু' অপরিবর্তিত রাখতে কোথাও চাঁদা তুলছেন শিক্ষক-শিক্ষিকারা, কোথাও আবার কাটছাঁট করা হচ্ছে মেনু।

পশ্চিমবঙ্গ প্রাথমিক শিক্ষক সমিতির পূর্ব বর্ধমান জেলা সভাপতি শ্রীকান্ত ঘোষালের দাবি, "আনাজের দাম বাড়ায় পুঁই, কুমড়ো, পেঁপে খাওয়াতে হচ্ছে। বরাদ্দ বাড়াতে বিভিন্ন জায়গায় চিঠি পাঠিয়েছি।''

এই পরিস্থিতিতেও জেলা প্রশাসনের তরফে ব্লক বা পুরসভার মাধ্যমে বার্তা দেওয়া হয়েছে, পড়ুয়াদের পুষ্টিতে ঘাটতি না হওয়ার বিষয়টি প্রত্যেক প্রধান শিক্ষক-শিক্ষিকা বা মিড-ডে মিলের দায়িত্বে থাকা শিক্ষক-শিক্ষিকাকে দেখতে হবে। মৌখিক ভাবে বলা হয়েছে, সপ্তাহে অন্তত দু'দিন ডিম আর প্রতিদিন মুসুর ডাল দিতে হবে। সরকারি নির্দেশিকা অনুয়ায়ী, পঞ্চম শ্রেণি পর্যন্ত পড়ুয়া পিছু চাল ও তরকারির ওজন হতে হবে ১০০ গ্রাম আর ষষ্ঠ থেকে অষ্টম শ্রেণি পর্যন্ত তা হবে দেড়শো গ্রাম। এ জন্য ছাত্র পিছু পঞ্চম শ্রেণি পর্যন্ত বরাদ্দ ৪ টাকা ৪৮ পয়সা এবং ষষ্ঠ থেকে অষ্টম শ্রেণি পর্যন্ত বরাদ্দ ৬ টাকা ৭১ পয়সা। এর মধ্যেই জ্বালানি, আনাজ, ডিম, ডাল, মশলা, তেল কিনতে হয় স্কুলগুলিকে। চাল দেয় সরকার।...

ফটো - http://v.duta.us/IBqyLQAA

এখানে সম্পূর্ণ সংবাদ পড়ুন- - http://v.duta.us/dzKBtwAA

📲 Get Bardhamannews on Whatsapp 💬